কেন খাবেন ছোট মাছ

সুস্থ ও কর্মক্ষম থাকার প্রধান শর্ত হচ্ছে, সুষম খাবার গ্রহণ। সুষম খাদ্যের উপাদানগুলো হলো প্রোটিন, শর্করা, স্নেহ, ভিটামিন, মিনারেল ও পানি। প্রোটিনের একটি ভালো উৎস হলো মাছ। মাছে উপকারী চর্বি থাকে। মাছের মধ্যে আবার ছোট মাছ অতুলনীয় পুষ্টি উপাদানে ভরপুর।

ছোট মাছের উপকারিতা 

● গর্ভের শিশুর বৃদ্ধি ও গঠন ভালো হয়। প্রসূতি মায়ের বুকের দুধ তৈরির জন্য তাঁদের প্রতিদিনের খাবারে আমিষের প্রয়োজন অত্যন্ত বেশি। এ জন্য তাঁদের খাদ্যতালিকায় ছোট মাছ রাখা দরকার। পাশাপাশি এ মাছে থাকা প্রচুর ক্যালসিয়াম হাড়ের ঘনত্ব ঠিক রাখে।

● জন্মের পর শিশুর শারীরিক বৃদ্ধিতে ভিটামিন ‘এ’, ‘ডি’, খনিজ লবণের প্রয়োজন হয় খুব বেশি। এ জন্য স্তন্যদানকারী মায়েদের ছোট মাছ খাওয়া দরকার।

● ভিটামিন ‘এ’-এর অভাবে প্রতিবছর হাজার হাজার শিশু অন্ধ হয়ে যায়। রাতকানা রোগে ভোগে। সে জন্য খাদ্যতালিকায় ছোট মাছ রাখা আবশ্যকীয়। 

● পর্যাপ্ত আমিষের অভাবে বাড়ন্ত ছেলেমেয়েদের দৈহিক উচ্চতা বাধাগ্রস্ত হয়। তাই তাদের খাদ্যতালিকায় দরকার ছোট মাছ। কারণ, এর আমিষ দেহের বৃদ্ধি সাধন ও ক্ষয় পূরণের কাজে লাগে বেশি। 

মনে রাখা জরুরি, ছোট মাছ সাধারণত কোনো রোগে নিষেধ নয়। উপকারী প্রোটিন ও ফ্যাট থাকায় এটি সব বয়সেই নিরাপদ। এতে অ্যালার্জির ঝুঁকিও কম। 

ছোট মাছ আকারে ছোট হলেও পুষ্টিতে কম নয়। প্রতি ১০০ গ্রাম ছোট মাছে আমিষের পরিমাণ ১৪-১৯ ভাগ থাকে। মাছের আমিষ হলো উন্নত মানের আমিষ। শিশু থেকে প্রবীণ সবাই নিশ্চিন্তে ছোট মাছ খেতে পারে।

Copyright © priyokagoj.com All Right Reserved.
Developed By Monoputo