বিসিএসেও প্রশ্নফাঁস, প্রতিবাদে বই পোড়ালেন দুই রাবি শিক্ষার্থী

সরকারি কর্মকমিশনের তত্ত্বাবধানে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (বিসিএস) পরীক্ষান প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ উঠেছে। এ প্রতিবাদে চাকরির বই পুড়িয়ে প্রতিবাদ করেছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) দুই শিক্ষার্থী। রবিবার (০৭ জুলাই) দিবাগত রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের মাদার বখশ হলে এ ঘটনা ঘটে।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি প্রত্যাশী আইন বিভাগের শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান আকন্দ বলেন, কোটা বৈষম্যে চাকরি পাচ্ছে না হাজারও মেধাবী শিক্ষার্থী। এদিকে বাংলাদেশ কর্মকমিশনের মতো সুরক্ষিত জায়গা থেকেও প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগ উঠছে। তাহলে মেধাবীরা কোথায় ভরসা করবে? 

তিনি আরও জানান, একটি ভাল চাকরির আশায় তো দিনরাত একাকার করে পড়াশোনা করছি। পরিবারের কষ্টার্জিত টাকায় মাসের পর মাস বসে খাচ্ছি। এতেও যদি মেধার মূল্যায়ণ না পাই, তাহলে এই পড়াশোনার কোনও মানে হয় না। এটা পিতামাতার রক্ত ও ঘামের সঙ্গে প্রতারণা বলে মনে হচ্ছে। তাই বই পুড়িয়ে ফেলছি। 

চাকরি প্রত্যাশী আরেক শিক্ষার্থী হৃদয় হোসেন বলেন, পড়াশোনা করে যদি চাকরি না পাই বা বিশাল বৈষম্যের শিকার হই, তাহলে পড়াশোনা করব না। সব বই পুড়িয়ে দিব। মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠাঁই হতে পারে না। মেধাভিত্তিক দুর্নীতিমুক্ত সমাজব্যবস্থা গড়ে উঠুক সেটাই চাই।

এর আগে, রবিবার (০৭ জুলাই) বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের তত্ত্বাবধানে বিসিএসসহ বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁসের ঘটনা দেশের বেসরকারি একটি টেলিভিশনের অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে জনগণের সামনে আসে। 

এতে বলা হয়েছে- ৩৩তম থেকে ৪৬তম বিসিএস পর্যন্ত প্রায় ৩০টি ক্যাডার-ননক্যাডার পরীক্ষার প্রশ্নফাঁস হয়েছে। এতে খোদ পিএসসির একাধিক কর্মকর্তা জড়িত। এ প্রতিবেদনের পর নেট দুনিয়ায় হইচই পড়ে এবং তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন দেশের চাকরিপ্রত্যাশী তরুণ সমাজ। 

Copyright © priyokagoj.com All Right Reserved.
Developed By Monoputo