মার্টিনেজের ‘বাজপাখি’ হয়ে ওঠার গল্প

বিশ্ব মঞ্চে শেষ মুহূর্তে যখনই বিপদ এসেছে তখনই ঢাল হিসেবে রক্ষা করেছেন তিনি। একের পর এক রূপকথার গল্প লিখে জিরো থেকে হিরো বনে গিয়েছেন রীতিমতো। বিশ্বচ্যাম্পিয়ন করেছেন, এর আগেই জিতিয়েছেন কোপা আমেরিকা; তবুও জেতার ক্ষুধা কমেনি। তিনি আর কেউ নন, ‘বাজপাখি’ খ্যাত আর্জেন্টিনার গোলকিপার এমিলিয়ানো মার্টিনেজ।

তবে তার ক্যারিয়ারের শুরুর গল্পটা এরকম ছিল না। মার্টিনেজ খেলতেন আর্সেনালে, যেখানে কোনোভাবেই জায়গা পাচ্ছিলেন না মূল স্কোয়াডে। তখন আর্সেনালের গোলবার সামলাচ্ছেন দুর্দান্ত ফর্মের জার্মান গোলকিপার বার্নড লেনো। তবে ব্রাইটনের সঙ্গে খেলতে গিয়ে ফ্রান্সের খেলোয়াড় নেইল মুপে’র সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে লেনো ইনজুরিতে পড়েন। মাঠে ঢোকেন বদলি গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ। ২০২০ সালের ২০ জুন; শুরু হয় নতুন এক ইতিহাস। মার্টিনেজ আর্সেনাল ছাড়ার আগ পর্যন্ত আর মূল দলে ফিরতে পারেননি বার্নড লেনো। জার্মান গোলরক্ষক ইনজুরি থেকে ফিরতে ফিরতে ধারাবাহিক নৈপুণ্য দিয়ে মূল দলে সেট হয়ে যান মার্টিনেজ। সেবার ইংলিশ এফএ কাপের ফাইনালে চেলসির বিপক্ষে দুর্দান্ত কিপিং করেন ‘বাজপাখি’ খ্যাত মার্টিনেজ। ২-১ গোলের জয়ে শিরোপা কুড়ায় আর্সেনাল।

পরের মৌসুমে ইংল্যান্ডের আরেক ক্লাব অ্যাস্টন ভিলায় রেকর্ড ২০ মিলিয়ন ইউরোতে  যোগ দেন মার্টিনেজ। তখনও আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের জার্সি ওঠেনি তার গায়ে। অ্যাস্টন ভিলায় প্রাচীর হয়ে ওঠা মার্টিনেজকে জাতীয় দলে ডাকতে বাধ্য হন লিওনেল স্কালোনি। ২০২১ সালের ১৪ জুন প্রথমবার আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের হয়ে চিলির বিপক্ষে মাঠে নামেন মার্টিনেজ। ১-১ গোলে ড্র হওয়া ওই ম্যাচে দুর্দান্ত সেভ দিয়ে হার থেকে রক্ষা করেন দলকে। মাত্র এক বছরের মাথায় হয়ে যান আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের অন্যতম ভরসা। সুযোগ পান বিশ্বকাপ দলে। আর আর্জেন্টিনাকে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বানিয়ে এমি হয়ে ওঠেন অনন্য।

বড় টুর্নামেন্টে আর্জেন্টিনার জার্সিতে এ পর্যন্ত চারবার টাইব্রেকারে মুখোমুখি হয়েছেন মার্টিনেজ। গোলবারে নিচে তার বিশ্বস্ত হাতের ক্যারিশমায় চারবারই জয় পেয়েছে আর্জেন্টিনা। ২০২১ কোপা আমেরিকার সেমিফাইনালে কলম্বিয়ার বিপক্ষে টাইব্রেকারে তিনটি শট রুখে দিয়ে রেকর্ড গড়েন এমি। পরে ফাইনালে ব্রাজিলকে ১-০ গোলে হারিয়ে শিরোপা কুড়ায় আর্জেন্টিনা। এমির কৃতিত্বে ২০২২ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে নেদারল্যান্ডস ও ফাইনালে ফ্রান্সকে টাইব্রেকারে হারিয়ে বিশ্বকাপ ঘরে তোলে আর্জেন্টাইনরা। 

ইকুয়েডরের বিপক্ষে এবারের কোপার কোয়ার্টার ফাইনালে ২টি দুর্দান্ত সেভ করেছেন মার্টিনেজ। ৪-২ গোলে জিতে সেমিতে উঠেছে আর্জেন্টিনা। নিজের ক্যারিয়ারে আর্জেন্টিনার হয়ে মোট ২৪টি পেনাল্টি শটের মুখোমুখি হয়েছেন মার্টিনেজ। এর মাঝে ৯টিই ঠেকিয়ে দিয়েছেন তিনি, প্রতিপক্ষের ফুটবলার মিস করেছেন ৩টি। বাকি ১২ শটে হয়েছে গোল। সব মিলিয়ে মোট ৫০ শতাংশ পেনাল্টি শটেই এমির বিপক্ষে গোল করতে পারেনি প্রতিপক্ষ!

Copyright © priyokagoj.com All Right Reserved.
Developed By Monoputo